সুতার সংজ্ঞা, ইতিহাস, উৎস, ধরন, বিভিন্ন ধরনের সুতার নাম।

By Hossain Rakib

সুতার সাতকাহন

সুতার অর্থ হলো পাকানো বা মোচড়ানো রজ্জু।কাপড় তৈরীর জন্য একগুচ্ছ তন্তুকে পাকিয়ে দিয়ে একত্রে সন্নিবেশ করে যা তৈরি করা হয় তাই সুতা।

আমরা যে নানা রকমের কাপড় ব্যবহার করে থাকি তা মূলত সুতার বাহার।

নানা রকমের সুতোর মাধ্যমে কাপড় গুলোকে আর্কষনীয় করা হয়।এই সুতো কোথা থেকে এলো?

কিভাবে এত বাহারি সুতো তৈরী হয় চলুন জেনে নেয়া যাক।

সুতার ইতিহাস

সুতা ঠিক কত বছর আগে আবিষ্কার  হয়েছে তা সঠিকভাবে কোথাও পাওয়া যায় নি।জানা যায় যে মেক্সিকোর বিভিন্ন গুহাগুলো সন্ধানকারীর দল সুতার বোল খুঁজে পেয়েছিলো যা পরীক্ষা করে প্রমাণিত হয়েছে যে সেগুলো কমপক্ষে ৭,০০০ বছর পুরনো। আরো জানা যায় যে পাকিস্তানের সিন্ধু নদী উপত্যকায তুলার চাষ করা হতো এবং তা থেকে সুতো আহরণ করা হতো, সে সুতা ব্যবহার করে কাপড়ে বোনা হতো। মিশরের নীল নদের তীরে গড়ে ওঠা মেসোপোটেমিয়া সভ্যতায় ও সুতার ব্যবহারের নমুনা পাওয়া যায়।

সুতার উৎস ও সুতার ধরণ

মূলত সুতার  উৎস হলো ফাইবার আঁশ।এই আঁশ গুলো আসে নানা রকমের উৎস থেকে।ফাইবার দুই উৎস থেকে আরে ১।প্রাকৃতিক ২।কৃত্রিম। ফাইবারের প্রাকৃতিক উৎস হলো উদ্ভিদ বা প্রাণী।পাট থেকে সুতো তৈরী করা হয়ে থাকে।যা আমরা সকলে জানি।আবার উল ফাইবার প্রাণিজ উৎস হতে আসে। কৃত্রিম ফাইবারের উৎস হলো বিভিন্ন প্রকার রাসায়নিক দ্রবাদি।কৃত্রিম ফাইবারের চমৎকার উদাহরণ হলো নাইনল সুতো।

সুতার বিভিন্ন ধরণ

 সিল্ক সুতা

এটি একটি অতি পরিচিত সুতা। সিল্ক সুতা অধিকতর শক্ত এবং উন্নতমানের সুতা।সাধারণত মহিলাদের বস্ত্র তৈরীতে এ সুতোর ব্যবহার করা হয়।ঘরের পর্দা তৈরীতে ও এ সুতার ব্যবহার করা হয়।

লিনেন সুতা

লিলেন সুতা একটি শক্ত প্রজাতির সুতা এটি গার্মেন্টস শিল্পে ব্যবহৃত হয়।

 কটন সুতা

এ সুতা তুলা থেকে তৈরী করা হয়। নরম এবং প্রশ্বাসযোগ্য কাপড় তৈরিতে এ সুতা ব্যবহৃত হয়।এ সুতোর তৈরী কাপড় অনেক পাতলা হয়।গরমে মানুষ কটন সুতোর তৈরী কাপড় বেশি ব্যবহার করে থাকে।

কটন সুতার আবার বিভিন্ন ধরণ রয়েছে

  • পিনা কটন
  • মিশরীয় কটন
  • জিন কটন
  • অর্গানিক কটন
  • পলিস্টার সুতা: পলিস্টার সুতা একটি কম দামী সুতা এবং এই সুতা শক্ত প্রকারের হয়ে থাকে।এ সুতা দামে কম হওয়ায় এটি বেশী পরিমানে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।পোশাক কারখানা বিশেষ করে লুঙ্গি তৈরীতে প্রচুর পরিমানে পলিস্টার সুতার ব্যবহার করা হয়ে থাকে।
  • নাইলন সুতা : নাইলন সুতা কৃত্রিম  আঁশ থেকে তৈরী সুতা। নাইলন সুতা ঘরের কাজে এবং বানিজ্যিক ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। নাইলন সুতা খুব শক্ত এবং টেকসই।নাইলন সুতা দিয়ে দড়ি তৈরী করা হয়ে থাকে।কৃত্রিম সুতার মাঝে এ সুতার ব্যবহার সর্বাধিক
  • রেয়ন সুতা : রেয়ন সুতা একটি জনপ্রিয় সুতা। এমব্রয়ডারি কাজে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় রেয়ন সুতা। এমব্রয়ডারি মেশিনে এ সুতা বেশি ব্যবহারের কারণ হলো এটি  ব্যবহারের সময় ছিড়ে যাওয়ার হার অন্যান্য সুতার তুলনায় অনেক কম।তাই দর্জি,পোশাক কারখানায় এ এমব্রয়ডারির কাজে এ সুতার ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ৭। উলেন সুতা : উলেন সুতা প্রাণির লোম থেকে উৎপাদন করা হয়।শীত প্রধান দেশে এ সুতোর ব্যবহার সর্বাধিক।এই সুতা  বিভিন্ন শীতের পোশাক ও কম্বল তৈরির ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।

আরো জানুন অনলাইন বিজনেস কি? কিভাবে করতে পারেন ?

Leave a Comment