ড্রাকুলা স্যার রিভিউ; Dracula Sir (2020)

ড্রাকুলা স্যার Dracula Sir (2020)

Dracula Sir 2020

মুভি রিভিউ: ড্রাকুলা স্যার Dracula Sir (2020)
ক্যাটাগরি: থ্রিলার 
পরিচালক: Debaloy Bhatyacharya
অনলাইন প্লাটফর্ম:
অভিনয়ে: Anirban Bhatyacharya, Mimi Chakroborty, Bidipta Chakroborty

বাংলাদেশের বাংলা চলচ্চিত্র যেখানে একদম নিজেদের অবস্থান ধরে রাখতে পারছে না ঠিক সেখানেই কলকাতার বাঙালি মুভি ইন্ডাস্ট্রি কিছু কাল আগেও বাজে সিনেমা তৈরি করলেও এখন দর্শকদের মনের চাহিদা অনুযায়ী সিনেমা নির্মাণ করছে ।যার একটি বড় প্রমাণ এই “ড্রাকুলা স্যার “

ড্রাকুলা স্যার পুরো মুভিটি ৮টি খণ্ডে ভাগ করা: একতলার ভাড়াটে, কলকাতার ড্রাকুলা, কলকাতা ৭১,আর শেষে উপসংহার

যেন উপন্যাস, একটার পর একটা অধ্যায়, শেষে উপশনহারে তুলির শেষ টান!
এই ১৯৭১ এর নাকসাল বিদ্রোহ, অমল সোম, মঞ্জরী আর ২০২০ এর রক্তিম ই মূল চরিত্র। ৭১ এর অমল সোম আর ২০ এর রক্তিম এর চরিত্রে রয়েছেন অনির্বাণ আর ৭১ এর মঞ্জরী চরিত্রে মিমি। অনির্বাণ এর অভিনয় সূণিপন  আর মিমির অভিনয় ও অনেক ইমপ্রুভ করেছেন।
৭১ এর অমল সোম বিদ্রোহ থেকে কিছুদিনের জন্য পালিয়ে আশ্রয় নেয় তার প্রাক্তন প্রেয়সী মঞ্জরী র ঘরে।মঞ্জরী বিধবা। আর এদিকে ২০এর রক্তিম যেন জাতিস্মর, যে নিজের মধ্যে বাঁচিয়ে রেখেছে অমল আর মঞ্জরী কে।


এই রক্তিম বা অমল, এর ২ টো বড় বড় দাত আছে ঠিক বিভিন্ন ভ্যাম্পায়ারের বা ড্রাকুলার মত, তাই সবাই তাকে ড্রাকুলা স্যার বলে ডাকে যেহেতু পেশায় শিক্ষক। 

Dracula Sir (2020) Movies Trailer ড্রাকুলা স্যার রিভিউ


এভাবেই বোধহয় সে ট্রমার মধ্যে দিয়ে যেতে গিয়ে রক্তিম  মেডিকেল ল্যাঙ্গুয়েজে সিজোফ্রেনিয়া রোগে আক্রান্ত হয়।
উপসংহার এ দেখলো অমল বেচে আছে! রক্তিম মঞ্জরী র মৃত স্বামী? মানে কি এসবের! যদি ও মঞ্জরী র মৃত স্বামী হয় তবে কেনো মনের মধ্যে অমল মঞ্জরী এর প্রেমের উপাখ্যান ধারণ করবে? নাকি সিজোফ্রেনিয়া ই সত্যি, জাতিস্মর না ও? এসব হাজারো প্রশ্ন……. 
মুভিতে আসলে অনেক কিছু কভার করতে চেয়েছে: ৭১ এর বিদ্রোহ, এক প্রেমকথা, এক অবহেলিত মানুষের মানসিক সমস্যা…।
কিছু কিছু কথা মুভিটি দেখার পর অবশ্যই দর্শকের  মনে গেঁথে আছে, যেমন”পৃথিবীর সব শ্রেষ্ঠ প্রেমপত্র গুলো রণাঙ্গন থেকেই লেখা মঞ্জরী।”

“কষ্ট পাবে জানি,মেনে নিতে পারছিনা এই ঠোঁটের অভিমান।কান্না পাবে জানি,চলে যাওয়ার ফলক বলবে দূরত্বের বয়ান।”
এই চারটি লাইন।
আসলে এই এন্ডিং টাই মনে হয় পারফেক্ট! শেষ হলেও রেশ রয়ে গেলোমাত্র ২ঘণ্টা সময়ের তো ব্যাপার, দেখে ফেলুন, আশাহত হবেন না।তবে যারা প্রচণ্ড পরিমাণে মাসালা মুভি লাভার, তারা অ্যাভয়েড করতে পারেন, সবার দৃষ্টিভঙ্গি আলাদা অবশ্যই।
চমৎকার এই মুভিটি যদি উপভোগ করতে চান তবে আপনার বাসার ওয়াইফাই সার্ভার থেকে ডাউনলোড করে নিন।অথবা mlwbd এর মতো পরিচিত দেশী ওয়েব সাইট থেকেও ডাউনলোড করতে পারেন ।

আরো জানুন


রিভিউ :সামিউল হক নিঝুম

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

Leave a Comment