খোয়াবনামা আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের অমর সৃষ্টি

খোয়াবনামা

বুক রিভিউ খোয়াবনামা

লেখক: আখতারুজ্জামান ইলিয়াস

ক্যাটাগরি:চিরায়ত উপন্যাস ।

প্রথম প্রকাশ: ১৯৯৬ সাল

বাংলাদেশের প্রকাশনা: মাওলা ব্রাদার্স

পশ্চিমবঙ্গের প্রকাশনা: নয়া উদ্যোগ

খোয়াবনামা

আখতারুজ্জামান ইলিয়াস বাংলা সাহিত্যের আকাশে অন্যতম একজন উজ্জ্বল নক্ষত্রের নাম। ১২ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৩ তিনি জন্ম গ্রহণ করেন এবং ৪ জানুয়ারি ১৯৯৭ মৃত্যুবরণ করেন। “খােয়াবনামা” অর্থ স্বপ্নের ব্যাখ্যাতা । কিন্তু স্বপ্নের ব্যাখ্যায় যা বিবেচ্য তা স্বপ্ন নয় , স্বপ্নদেখা মানুষ । এই কথার উপর ভাষা আর কথার শিল্প দিয়ে আখতারুজ্জামান ইলিয়াস সৃষ্টি করেছেন ‘খোয়াবনামা ‘ নামের বিখ্যাত এই বাংলা উপন্যাস টি । তাছাড়াও বঙ্গভঙ্গ(১৯৪৭), তেভাগা আন্দোলন ,সিপাহী বিদ্রোহ এর কিছু ঘটনা নিয়ে এই উপন্যাসেরর মূল প্লট ।

খোয়াবনামা উপন্যাসের চরিত্র
খোয়াবনামা

তিনি নির্বাচিত বিষয়ে লেখালেখি পছন্দ করতেন।খোয়াবনামা প্রফুল্ল কুমার সরকার স্মৃতি আনন্দ পুরস্কার,সাদাত আলী আকন্দ পুরস্কার পেয়েছেন । বাংলাদেশের অন্যতম কথাসাহিত্যিক শওকত আলী তাঁর “খোয়াবনামা-র মিথ: তৃণমূলে যাবার এক পথ “শীর্ষক প্রবন্ধে লেখেন যে

“পুরো খোয়াবনামা মনোযোগ দিয়ে পড়ার পর যে কোনও পাঠকের মনে হবে যে, এ রচনা আলাদা। মাটি মানুষ বিল ঝিল নদী জঙ্গল জন্ম মৃত্যু প্রেম লোভ ঘৃণা দ্বন্দ্ব ইত্যাদি মানবিক ও প্রাকৃতিক বিষয়, প্রসঙ্গ, আবহ, অতীত আর বর্তমানের সঙ্গে এমনভাবে মেশামেশি হয়ে রয়েছে যে এর পুরো ব্যাপারটা যতখানি-না বুদ্ধি দিয়ে বিশ্লেষণ করে বুঝবার, তাঁর চাইতে অনেক বেশি সরাসরি উপলব্ধি করার।”

আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের অন্যান্য বই : গল্পগ্রন্থ : ‘ অন্য ঘরে অন্য স্বর , খেয়ারি , দুধভাতে উৎপাত , দোজখের ওম । রচনাসমগ্র ১ ম – ৪ র্থ খণ্ড , উপন্যাস : চিলেকোঠার সেপাই ।

খোয়াবনামা উপন্যাসের কাহিনী সংক্ষেপ

খোয়াবনামা উপন্যাসের তমিজ চরিত্র
খোয়াবনামা উপন্যাস

মেলা দিন আগেকার কথা । কাৎলাহার বিলের ধারে । ঘন জঙ্গল সাফ করে সোভান ধুম আবাদ শুরু করে । বাঘের ঘাড়ে জোয়াল চাপিয়ে । ওইসব দিনের এক বিকালবেলা মজনু শাহের অগুনতি ফকিরের সঙ্গে মহাস্থান গড়ের দিকে যাবার সময় ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সেপাই সর্দার টেলারের গুলিতে মারা পড়ে মুনসি বয়তুল্লা শাহ । কাৎলাহার বিলের দুই ধারের মানুষ সবাই জানে , বিলের উত্তরে পাকুড়গাছে আসন নিয়ে রাতভর বিল শাসন করে । মুনসি । বন্যায় ভেঙে পড়ে কাৎলাহারের তীর । মুনসির নিষ্কণ্টক অসিয়তে চাষীরা হয় কালাহার বিলের মাঝি । খােয়াবনামার শুরু । বিলের মালিকানা চলে যায় জমিদারের হাতে । মুনসির শােলাকে শােলােকে মানুষের স্বপ্নের ব্যাখ্যা করে বেড়ায় চেরাগ আলি ফকির ।

খোয়াবনামা উপন্যাসের রিভিউ
খোয়াবনামা উপন্যাসের রিভিউ

পাকুড়গাছের মুনসিকে । ভবানী পাঠকের সঙ্গে পূর্বপুরুষের জের টেনে বৈকুণ্ঠনাথ গিরি প্রতীক্ষা করে ভবানীর শুভ আবির্ভাবের । তমিজ দেখে জমির স্বপ্ন । আর চেরাগ আলির নাতনি কুলসুম খােয়াবে কার কায়া যে দেখতে চায় তার দিশা পায় না । তেভাগার কবি কেরামত শেষ পর্যন্ত আটকে পড়ে শুধুই নিজের কোটরে ; সে নাম চায় বৌ চায় ঘর চায় । কোম্পানির ওয়ারিশ ব্রিটিশের ডাণ্ডা উঠে আসে দেশি সায়েবদের হাতে । দেশ আর দেশ থাকে না , হয়ে যায় দুটো রাষ্ট্র । দেশি সায়েবরা নতুন রাষ্ট্রের আইন বানায় , কেউ হয় টাউনবাসী , কেউ হয় কন্ট্রাকটর । আবার নিজেদেশে পরবাসী হয় কোটি কোটি মানুষ ।

খোয়াবনামা উপন্যাসটি কার লেখা
খোয়াবনামা

পাকুড়গাছ নাই । মুনসির খোঁজ করতে করতে চোরাবালিতে ডুবে মরে তমিজের বাপ । ভবানী পাঠক আর আসে না । বৈকুণ্ঠ নিহত । ক্ষমতাবান ভদ্রলােকের বাড়িতে চাকর হয়ে বিল – ডাকাতির আসামী তমিজ পুলিসকে এড়ায় । কিন্তু তার কানে আসে কোথায় কোথায় চলজে তেভাগার লড়াই । নিরাপদ আশ্রয় ছেড়ে তমিজ বেরিয়ে পড়ে তেভাগার খোঁজে । ফুলজানের গর্ভে তমিজের ঔরসজাত মেয়ে সখিনাকে নিয়ে ফুলজান ঠাই নেয় কোথায় । খােয়াবনামা সারা । কিন্তু মােষের দিঘিরপাড়ে শুকনা খটখটে মাঠের মাটিতে দাঁড়িয়ে কাৎলাহার বিলের উত্তরে সখিনা দেখতে পায় জ্বলন্ত হেঁসেলে বলকানো ভাত । খােয়াবনামা জিম্মাদার তমিজের বাপের হাত থেকে খােয়াবনামা একদিন বেহাত হয়ে গিয়েছে । এখন সখিনার খােয়াব।

তাই নিজের সাহিত্য সম্পর্কে জানতে ,কোয়ারেন্টাইন কাজে লাগাতে অবশ্যই পড়তে পারেন উপন্যাস টি ।

খোয়াবনামা আখতারুজ্জামান ইলিয়াস
খোয়াবনামা

উপন্যাসটি নিকটস্থ ব‌ইয়ের মার্কেট অথবা আমাদের দেশের বিখ্যাত অনলাইন বুকশপ “রকমারি ডট কম” থেকে সংগ্রহ করতে পারেন ।

সাধারণত দাম পড়বে :২৫০-৩০০ টাকা “রকমারিডটকম” থেকে দাম পড়বে:৩৮৩ টাকা

রিভিউ লেখিকা : ইসরাত জাহান বর্ণ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ।

I am the Admin Of Jibhai.com and also part of jibhai.com

Leave a Comment